শিরোনাম:
পাইকগাছা, শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ন ১৪২৮
SW News24
সোমবার ● ২২ নভেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » পরিবেশ » পাইকগাছায় লেপ- তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা
প্রথম পাতা » পরিবেশ » পাইকগাছায় লেপ- তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা
৪৩ বার পঠিত
সোমবার ● ২২ নভেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

পাইকগাছায় লেপ- তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

এস ডব্লিউ;--- শীত আসছে লেপ-তোষকের কদর বাড়ছে । তাই  পাইকগাছায় লেপ-তোষকের কারিগরদের ব্যস্ততাও বেড়েছে।   ব্যাবসায়ীরাও দোকান সাজিয়ে বিক্রি শুরু করেছেন শীতের গরম কাপড়। শীত মোকাবিলায় গ্রামের মানুষ আগেই লেপ-তোষক জোগাড় শুরু করেছেন। তাই শীতকে সামনে রেখে কারিগরদের এখন যেন দম ফেলার বিরাম নেই।---

উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে লেপ-তোষকের ১০-১২টি দোকান আছে।পাইকগাছা পৌর বাজার, নতুন বাজার, কপিলমুনি বাজার, বাঁকা বাজার, আগড়ঘাটা বাজার সহ বিভিন্ন বাজারে লেপ-তোষকের দোকান রয়েছে। এসকল দোকানে অর্ডারী লেপ-তোষকের পাশাপাশি তৈরী লেপ-তোষক সারি সারি সাজিয়ে রেখেছে। এসব দোকানগুলো ঘুরে দেখা গেছে এমন দৃশ্য। মালিক-শ্রমিক সবাই লেপ-তোষক তৈরি, সেলাইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আকার ও তুলা ভেদে বিভিন্ন দামে লেপ-তোষক বিক্রি করা হচ্ছে। এ বছর বিভিন্ন মালের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় একেকটি লেপ  বিক্রি হচ্ছে ১৪০০ থেকে ১৬০০ টাকায়।তোষক বিক্রি হচ্ছে৮ শত থেকে ৯ শত টাকা।

শীতে বছরের এ সময় ক্রেতাদের ভিড় বাড়ে।বছরের ৮ মাস অলস সময় পার করলেও শীতের চার মাস লেপ-তোষক কারিগরদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে লেপ-তোষক তৈরির কাজ।

 রোজী আক্তার নামের এক লেপ ক্রেতা জানান, শীত বাড়তে শুরু করেছে। তাই আগে ভাগেই লেপ তৈরি করতে এসেছি। এ বছর দামটা একটু বেশি মনে হচ্ছে।শফিকুল নামে আরেক ক্রেতা জানান, কয়েক বছর আগে একটা লেপ তৈরি করেছিলাম। সেটা পুরাতন হয়ে গেছে। সে জন্য নতুন করে লেপ তৈরি করতে এসেছি। তবে দাম অনেক বেশি বলছে কারিগরা।

 পাইকগাছায় বাজারের পাইকগাছা বেডিং হাউজ এণ্ড ফোম কর্ণার  এর মালিক শফিকুল ইসলাম  জানান, আধুনিক যন্ত্রে উৎপাদিত কম্বল, মেট্রেস সহজে পাওয়া যাওয়ায় বর্তমানে লেপ-তোষকের চাহিদা কমে গেছে। লেপ-তোষক তৈরিতে খরচ বেড়ে গেছে। একটি লেপ-তোষক বিক্রি করে তাদের ২০০ থেকে ৩০০ টাকা লাভ হয়। লাভ কম হলেও কাজে ব্যস্ত থাকায় তারা এখন খুশি।

  লেপ তোষক তৈরির কারিগর ইয়াছিন বলেন, প্রতি বছরই শীতের সময় আমরা লেপ তোষক তৈরির কারিগররা ব্যস্ত সময় পার করি। তবে আমাদের মুজুরি সে ভাবে বাড়েনি।

চলতি মৌসুমে জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় স্বাভাবিক ভাবেই লেপ-তোষক তৈরিতে খরচ বেড়ে গেছে। কাপড় ও তুলার মান বুঝেই লেপ-তোষকের দাম নির্ধারণ করা হয়। ৪-৫ হাত লেপের দাম পড়ছে ১৪০০ থেকে ১৬০০ টাকা।আর তোষক তৈরিতে দাম পড়ছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা। তবে  প্রতিগজ কাপড়ে ১০ থেকে পনের টাকা দাম বেড়েছে। তুলায় বেড়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা। গার্মেন্টের সাদা ঝুট, ফোমের কাটা অংশ কিনতে হচ্ছে বেশি দাম দিয়ে।শীত এখন খুব বেশী না। তবে  শীতের তীব্রতা বাড়লে লেপ-তোষকের চাহিদা বাড়তে পারে।’



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)