শিরোনাম:
পাইকগাছা, সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
SW News24
মঙ্গলবার ● ২১ ডিসেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » বিবিধ » ‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার’ পেলেন মির্জা গালিব সতেজ
প্রথম পাতা » বিবিধ » ‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার’ পেলেন মির্জা গালিব সতেজ
৬৯ বার পঠিত
মঙ্গলবার ● ২১ ডিসেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার’ পেলেন মির্জা গালিব সতেজ

---

ফরহাদ খান, নড়াইল

‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার’ পেলেন স্বপ্নের খোঁজে ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নড়াইলের কৃতি সন্তান মির্জা গালিব সতেজ। সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে সাভারের শেখ হাসিনা জাতীয় যুব উন্নয়ন ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন-সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) ট্রাস্টি বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা ও সিআরআইয়ের চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ জয়ের ধারণ করা বক্তব্য প্রচার করা হয়।

দেশ এবং মানুষের কল্যাণে যেসব তরুণ উদ্যোক্তা ও সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে তাদের মধ্যে ৩১ সংগঠনকে বাছাই করা হয়। সেখান থেকে ১৫ সংগঠনকে বেছে নেয়া হয়-‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ এর জন্য। বাকি ১৬ উদ্যোক্তা ও সংগঠনকে দেয়া হয়েছে-সনদপত্র, ল্যাবটপ ও বইপত্র। এদেরই একজন-খোঁজে ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মির্জা গালিব সতেজ।

পুরস্কার পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মির্জা গালিব সতেজ বলেন, সমাজে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ভাসমান বেদে সম্প্রদায়ের মাঝে শিক্ষা ও জীবনযাত্রা মানউন্নয়ন নিয়ে কাজ করার স্বীকৃতিস্বরূপ এ পুরস্কার পেয়েছি। এ সাফল্য আমাদের কাজকে আরো গতিশীল করবে। অনুপ্রেরণা জোগাবে।

স্বপ্নের খোঁজে সংগঠনের সদস্যরা জানান, পড়ালেখার টাকা জমিয়ে এবং পারিবারিক সহযোগিতার মাধ্যমে ২০১৭ সাল থেকে কাজ করছেন তারা। মূলত সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য কাজ করেন তারা। বর্তমানে তাদের সদস্য সংখ্যা ৪৫ জন। ভাসমান বেদে সম্প্রদায়ের শিক্ষা ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের পাশাপাশি করোনাকালীন সময়ে অসহায় মানুষকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, বিনামূল্যে সবজি বাজার, গরিব কৃষকের ধান কর্তন, চিকিৎসাসেবা, হাসপাতাল ও এতিমখানায় ইফতার বিতরণ, ঈদে ছিন্নমূল শিশুদের মাঝে নতুন পোশাক উপহার দেয়াসহ বিভিন্ন সহযোগিতা করে যাচ্ছে সংগঠনটি।

এদিকে আয়োজকরা জানান, ‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার-২০২১’ এর জন্য ৭০০ শতাধিক আবেদনের মধ্য থেকে বিচারকরা দীর্ঘদিন বিচার বিশ্লেষণ শেষে ৩১ সংগঠনকে বাছাই করেন। গত ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন আহ্বান করা হয়। যা ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত গ্রহণ করা হয়। দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে তরুণ প্রজন্মকে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত করার উদ্দেশে তাদের নতুন ধারণা ও উদ্ভাবনগুলোকে তুলে আনার জন্যই ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর আত্মপ্রকাশ করে ইয়াং বাংলা প্ল্যাটফর্ম। ৫০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী এবং ৩১৫টির বেশি সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে চলা ইয়াং বাংলার সদস্য সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ৩ লাখ। এ প্ল্যাটফর্ম থেকে তরুণদের ক্ষমতায়ন ও দেশ গঠনে তাদের অবদান তুলে ধরার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তরুণদের কাজের স্বীকৃতির জন্য জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়।

‘জয় বাংলা ইয়ুথ পুরস্কার-২০২১’ মনোনয়নের জন্য বিচারক প্যানেলের সদস্য ছিলেন-মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাকালীন ট্রাস্টি মফিদুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর উন্নয়ন বিষয়ক অর্থনীতিবিদ আতিউর রহমান, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, অভিনেত্রী জয়া আহসান, ইয়াং বাংলার আহ্বায়ক সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক, উইমেন ইন ডিজিটাল আচিয়া খালেদা নিলা, ডান অ্যান্ড ব্রেডস্ট্রিটের সিইও জারা মাহবুব, পরিবেশ ও বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আন্দোলনকারী শাহরিয়ার সিজার রহমান, চলচ্চিত্র পরিচালক রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিত, তৃতীয় লিঙ্গের অধিকার নিয়ে আন্দোলনকারী টিভি উপস্থাপক তাসনুভা আনান শিশির, সিলেট উইমেন চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট স্বর্ণলতা রায় এবং ডেইলি স্টারের সিনিয়র করসপনডেন্ট পরিমল পালমা।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)