শিরোনাম:
পাইকগাছা, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

SW News24
শুক্রবার ● ২৬ জানুয়ারী ২০২৪
প্রথম পাতা » অপরাধ » শরণখোলায় গোলপাতা আহরণের নৌকায় আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
প্রথম পাতা » অপরাধ » শরণখোলায় গোলপাতা আহরণের নৌকায় আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
১১২ বার পঠিত
শুক্রবার ● ২৬ জানুয়ারী ২০২৪
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

শরণখোলায় গোলপাতা আহরণের নৌকায় আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা

---

শরণখোলা (বাগেরহাট প্রতিনিধি )বাগেরহাটের শরণখোলায় গোলপাতা আহরণের একটি বাওয়ালী নৌকায় আগুন গিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আগুনে প্রায় লাখ টাকা মূল্যের নৌকাটির মাঝখান থেকে পুড়ে যায়। শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) ভোরে উপজেলা সদর রায়েন্দা বাজারের পূর্বমাথায় বলেশ্বর নদের পাড়ে ঘটে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা।

আগুনে পোড়া নৌকাটি উপজেলার উত্তর তাফালবাড়ী গ্রামের গোলপাতা ব্যবসায়ী মো. সেলিম ব্যাপারীর। কিছুদিন আগে প্রায় দেড় লাখ টাকা খরচ করে নৌকাটি মেরামত করেন তিনি। ৩০ জানুয়ারি গোলাপাতা আহরণের জন্য নৌকা নিয়ে সুন্দরবনে যাওয়া কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ এমন দুর্ঘটনায় সুন্দরবনে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তার।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী সেলিম ব্যাপারী জানান, প্রায় ১২ বছর ধরে সুন্দরবনে গোলপাতার ব্যবসা করছেন তিনি। রায়েন্দা বাজারের পূর্বমাথায় বলেশ্বর নদের পাড়ে নৌকাটি মেরামত করে রাখা ছিল। ২৮ জানুয়ারি পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জে গোলপাতা আহরণের পাস (অনুমোতিপত্র) দেওয়া হবে। সেখান থেকে পাস নিয়ে ৩০ তারিখ বনে যাবেন। কিন্তু কারা কি কারণে তার নৌকাটিতে আগুন দিল তা বুঝতে পারছেন না।

ব্যবসায়ী সেলিম ব্যাপারী জানান, দেড় লাখ টাকা ধারদেনা করে মেরামতের পর নৌকাটির মূল দাঁড়িয়েছে এখন পাঁচ লাখ টাকা। আগুনে পুড়ে যাওয়ায় এখন আবার মেরামত করতে আরো এক লাখ টাকা খরচ করতে হবে। কিন্তু এই টাকা যোগাড় করা তার পক্ষে অসম্ভব। নৌকাটি নতুন করে মেরামত করতে অনেক সময় লেগে যাবে। এ অবস্থায় গোলপাতা আহরণের জন্য এবছর সুন্দরবনে যেতে পারবেন কিনা সেই চিন্তায় পড়েছেন।

রায়েন্দা বাজারের পূর্বমাথার বাসিন্দা প্রত্যক্ষদর্শী শাহারু পহলান জানান, তিনি ফজরের নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় নৌকাটিতে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখেন। তখন আশপাশের লোকজন নিয়ে আগুন নিভিয়ে সম্পূর্ণ পুড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করেন নৌকাটি।

তার ধারণা, প্রায়ই রায়েন্দা শহররক্ষা বাঁধে গভীররাতে মাদকসেবিদের আড্ডা বসে। তারা নিরাপদে মাদকসেবনের জন্য নদীর চরে রাখা নৌকা-ট্রলার বেছে নেয়। হয়তো তাদের ফেলা বিড়ি-সিগারেটের অবশিষ্ট অংশ থেকে নৌকায় আগুন লেগেছে।

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এইচ এম কামরুজ্জামান বলেন, এব্যাপারে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)