শিরোনাম:
পাইকগাছা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮
SW News24
মঙ্গলবার ● ২৭ জুলাই ২০২১
প্রথম পাতা » সারাদেশ » আশাশুনিতে বিশ্ব পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ দিবস পালন
প্রথম পাতা » সারাদেশ » আশাশুনিতে বিশ্ব পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ দিবস পালন
৪৬ বার পঠিত
মঙ্গলবার ● ২৭ জুলাই ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

আশাশুনিতে বিশ্ব পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ দিবস পালন

আশাশুনি  ---: আশাশুনিতে সরকার ঘোষত কঠোর লকডাউনের ফলে বিশ্ব পানিতে ডুবে মৃত্যু প্রতিরোধ দিবস’২১ আনুষ্ঠানিকতার সাথে পালন করা সম্ভব না হলেও দিবসের তাৎপর্য ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের করনীয়তা সম্পর্কে সচেতন করা হয়েছে। বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলিয় অঞ্চল সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলা দু’টি নদী বেষ্টিত দুর্যোগ প্রবণ এলাকা। শ্যামনগর উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ ইউনিয়ন পদ্মপুকুর, বুড়িগোয়ালীনি ও গাবুরা এবং আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর, আনুলিয়া ও শ্রীউলা ইউনিয়নের বিগত দিনগুলোতে প্রতিবছরই পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। বর্তমানে বেসরকারী সংস্থা ফ্রেন্ডশিপ ‘জনগোষ্ঠির উদ্যোগে দুর্যোগ ঝুকি হ্রাস’ (সি.আই.ডি.আর.আর) প্রকল্পের মাধ্যমে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ বিষয়ক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। প্রকল্পের উদ্দেশ্য হল এলাকার জনগোষ্ঠীর দুর্যোগ ঝুঁকি কমানোর জন্য নিজেদের উদ্যোগে উৎসাহিত করা এবং বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগের মাধ্যমে দুর্যোগ ঝূঁকি হ্রাস করা। ফ্রেন্ডশিপ শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলার ২৪টি কমিউনিটিতে ৭২০জন উপকারভোগীকে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধের বিষয়ে সচেতন করার জন্য কমিউনিটি পর্যায়ে সাঁতার প্রশিক্ষণ ও পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর কারনের প্রতিকার ব্যবস্থা বিষয়ে ধারনা দেওয়া হয়। পাশাপাশি শিশুদের সাঁতার শেখানোর বিভিন্ন কৌশল বিষয়ে ধারনা দেওয়া হয়। প্রতিটি কমিউনিটিতে ২জন করে সাঁতার প্রশিক্ষক তৈরি করা হয়। ফ্রেন্ডশিপ সংস্থার আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান বলেন, ফ্রেন্ডশিপ ২০১৪ সাল থেকে শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলায় পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু প্রতিরোধে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বর্তামানে ২৪টি কমিউনিটিতে প্লাস্টিক জারের মাধ্যমে সাঁতার প্রশিক্ষণ ও কলসির মাধ্যমে সাঁতার প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলমান আছে। গত ১ বছরে কমিউনিটির নিজস্ব উদ্যোগে ২১৩ জন শিশুকে সাঁতার শিখানো হয়েছে। যার ফলে গত ১ বছরে ওই কমিউনিটিতে কোন শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়নি। এছাড়া আমাদের পরিকল্পনা হচ্ছে ভবিষ্যতে কোন শিশু যেন আর পানিতে ডুবে মারা না যায়, সে লক্ষ্যে আমাদের কার্যক্রম চলমান রাখা, যা কমিউনিটির নিজস্ব উদ্যেগে নিজেরাই তাদের শিশুদের সাঁতার প্রশিক্ষণ দিয়ে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পাবে।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)