শিরোনাম:
পাইকগাছা, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮
SW News24
বুধবার ● ১ সেপ্টেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » ইতিহাস ও ঐতিহ্য » সৌন্দর্য হারাচ্ছে প্রাচীন ঐতিহাসিক মসজিদকুঁড়ের মসজিদ
প্রথম পাতা » ইতিহাস ও ঐতিহ্য » সৌন্দর্য হারাচ্ছে প্রাচীন ঐতিহাসিক মসজিদকুঁড়ের মসজিদ
৩৬ বার পঠিত
বুধবার ● ১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

সৌন্দর্য হারাচ্ছে প্রাচীন ঐতিহাসিক মসজিদকুঁড়ের মসজিদ

---

রামপ্রসাদ সরদার, কয়রা, খুলনাঃ
অযত্ন ও অবহেলায় সৌন্দর্য হারাতে বসেছে খুলনার কয়রা উপজেলার আমাদিগকে ইউনিয়নের মসজিদকুঁড়ের ঐতিহাসিক প্রাচীন মসজিদকুঁড় মসজিদটির।
সাত ফুট চওড়া চুন-সুরকির গাঁথুনির নান্দনিক ইটের দেয়াল। দেড় হাজার বর্গফুট আয়তনের মসজিদের ভেতরে মাত্র চারটি পাথরের খুঁটির ওপর ৯টি সুদৃশ্য গম্বুজ। রয়েছে চার কোণে ৪টি গোলাকার টারেট। বাইরের দেয়াল পোড়ামাটির চিত্রফলক দ্বারা অলংকৃত। তবে চমৎকার এসব স্থাপত্যশৈলী লবণাক্ততায় গ্রাস করছে ধীরে ধীরে। খসে পড়ছে সুদৃশ্য চিত্রফলক। দর্শনার্থী ও স্থানীয়দের অভিযোগ, নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে দক্ষিণ বাংলার এ প্রত্নসম্পদ মসজিদকুঁড় মসজিদ সৌন্দর্য হারাতে বসেছে।

খুলনা শহর থেকে প্রায় ৮৪ কিলোমিটার দক্ষিণে কয়রা উপজেলার আমাদি ইউনিয়নের সবুজে ঘেরা মসজিদকুঁড় গ্রামের কপোতাক্ষ নদের তীরে নয়ানাভিরাম এ মসজিদটি অবস্থিত। প্রচলিত আছে, নির্মাণকালের প্রায় তিনশ বছর পর জলদস্যুদের অত্যাচারে এ অঞ্চল জনমানবশূন্য হলে সেখানে ঘন জঙ্গলে পরিণত হয়। এতে মসজিদটিও ঝোপঝাড় ও মাটির নিচে অর্ধেক ঢাকা পড়ে যায়। ১৯৪৭ সালে মসজিদটির সন্ধান মেলে। ঘন জঙ্গল কেটে ও মাটি খুঁড়ে এ মসজিদ আবিস্কার হওয়ায় নাম দেওয়া হয় মসজিদকুঁড় মসজিদ। সেই থেকে মসজিদের নামেই গ্রামটি পরিচিতি পেয়েছে মসজিদকুঁড় নামে।

ধারণা করা হয়, ১৪৫০ সালের দিকে হযরত খানজাহান আলীর (রহ.) বিশ্বস্ত সহচর বুড়া খাঁ ও তার ছেলে ফতেহ খাঁ মসজিদটি নির্মাণ করেন। মসজিদের পশ্চিম পাশে কপোতাক্ষ নদ ও অন্য তিন পাশে পরিখা খনন করা ছিল। যার দুই পাশে বর্তমানে ভরাট করে বসতি গড়ে উঠেছে। বর্তমানে মূল চত্বরের জমিও দখল হয়ে যাওয়ায় সৌন্দর্য হারাচ্ছে মসজিদটি। এক সময় টেরাকোটা দিয়ে সজ্জিত ছিল এটি। এর অনেকটাই এখন খসে পড়েছে, নয়তো খোয়া গেছে। এছাড়া নদীভাঙনের ফলে মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানটির অস্তিত্ব নেই এখন। স্থানীয়রা জানান, কবরস্থানটিতে মসজিদ নির্মাণকারীদের বংশধরের কবর ছিল।

গ্রামের বাসিন্দা জুলফিকার আলী বলেন, মসজিদকুঁড় মসজিদটি সরকারের প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আওতায় থাকায় এর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বও তাদের। বর্তমানে মসজিদটি অবহেলা ও অযত্নে সৌন্দর্য হারাতে বসেছে।

দর্শনার্থী আশরাফুল আলম বলেন, মসজিদটির দেয়ালের অনেক শিল্পকর্ম খসে পড়ছে। লবণাক্ততায় এর ইটও ক্ষয়ে যাচ্ছে। এতে মসজিদটি ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।

মসজিদের বর্তমান ইমাম মাহমুদুল হাসান জানিয়েছেন, শূন্য দশমিক ৪৫ একর জমির ওপর মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত। এটি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের। তবে তাদের নিয়োগপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা অথবা কর্মচারী এখানে নেই।

খুলনা প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক আফরোজা খান মিতা বলেন, খুলনা বিভাগের সব পুরাকীর্তি রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আপাতত জনবল সংকটে মসজিদকুঁড়ের মসজিদটি দেখভালের জন্য সেখানকার খাদেম ও স্থানীয়দের সমন্বয়ে কমিটি করে দেওয়া হয়েছে।



ইতিহাস ও ঐতিহ্য এর আরও খবর

দেশে বীর মুক্তিযোদ্ধা কতজন, জানালেন মন্ত্রী দেশে বীর মুক্তিযোদ্ধা কতজন, জানালেন মন্ত্রী
৫ সেপ্টেম্বর বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখের ৫০তম শাহাদতবার্ষিকী ৫ সেপ্টেম্বর বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখের ৫০তম শাহাদতবার্ষিকী
স্বাধীনতার সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানীর ১০৩তম জন্মদিন স্বাধীনতার সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানীর ১০৩তম জন্মদিন
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় কমিটির পক্ষ হতে পোস্টার প্রকাশিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় কমিটির পক্ষ হতে পোস্টার প্রকাশিত
কেশবপুরে মোগল সম্রাজ্যের ইতিহাস মির্জানগর হাম্মামখানা কেশবপুরে মোগল সম্রাজ্যের ইতিহাস মির্জানগর হাম্মামখানা
ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন: এ গৌরব দেশবাসীর ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন: এ গৌরব দেশবাসীর
করোনায় অনাড়ম্বর আয়োজনে কপিলমুনির কপোতাক্ষ কালী বাড়ী ঘাটে বারুণী স্নানোৎসব করোনায় অনাড়ম্বর আয়োজনে কপিলমুনির কপোতাক্ষ কালী বাড়ী ঘাটে বারুণী স্নানোৎসব
মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে ভারতীয় যুদ্ধ জাহাজ কুলিশ ও সুমেদা মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে ভারতীয় যুদ্ধ জাহাজ কুলিশ ও সুমেদা
জিয়ার খেতাব বাতিল করা হয়নি: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী জিয়ার খেতাব বাতিল করা হয়নি: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)