শিরোনাম:
পাইকগাছা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১

SW News24
মঙ্গলবার ● ২৫ জুন ২০২৪
প্রথম পাতা » কৃষি » আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় মাগুরায় পাটের বাম্পার ফলনের আশা
প্রথম পাতা » কৃষি » আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় মাগুরায় পাটের বাম্পার ফলনের আশা
৬৮ বার পঠিত
মঙ্গলবার ● ২৫ জুন ২০২৪
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় মাগুরায় পাটের বাম্পার ফলনের আশা

---

শাহীন আলম তুহিন,মাগুরা  : চলতি বছর তীব্র তাপদাহ বিরাজ করার ফলে জেলার অধিকাংশ পাটচাষীরা বিপাকে ছিল । পাটের বীজ বোনার পর কোন বৃষ্টিপাত না হওয়াতে পাটের চারা গজাতে কিছুটা দেরি হয়েছে ক্ষেতে । আবার তীব্র তাপদাহ থাকায় কোন মাঠের চারা গজানোর পর তা মওে যাচ্ছিল ফলে শঙ্কিত হয়ে পড়েছিল অনেক অঞ্চলের কৃষক ।  কিন্তু বৈশাখ মাসের শেষের দিকে বৃষ্টিপাত দেখা দেওয়ায় পাট চাষ ভালো হয়েছে । বর্তমানে আষাঢ় মাসের শুরুতে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়াতে পাটের চারা তাড়াতাড়ি বাড়তে শুরু করে । সরজমিন মাগুরা সদরের মঘী,রাঘবদাইড়,হাজরাপুর,হাজীপুর,চাউলিয়া ,জগদল ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠ ঘুরে  দেখা গেছে ,বর্তমানে পাটের চারা ৫-৬ হাত পর্যন্ত লম্বা হয়েছে । এলাকার কৃষকরা জানিয়েছেন এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকার কারণে ও যথাসময়ে বৃষ্টি হওয়ায় পাটের চাষ ভালো হবে । এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে জেলায় বেশি পাট উৎপাদন হবে বলে তারা আশা বাদী ।

জেলার কৃষি বিভাগ বলছে,চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৫ হাজার ৪৯৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে । তার মধ্যে সদরে ১১ হাজার ৫০ হেক্টর,শ্রীপুরে ৯ হাজার ৬২০ হেক্টর,শালিখায় ৩ হাজার ৯৫০ হেক্টর ও মহম্মদপুরে ১০ হাজার ৮৭৫ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ করা হয়েছে ।  এবার উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৫৪ হাজার ৪৮৫ বেল পাট । নির্দিষ্ট সময়ে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত হওয়ায় এবার পাটের চাষ ভালো হয়েছে বলে কৃষি বিভাগ মনে করছে । আবহাওয়া ভালো থাকার কারণে এবার পাটচাষীরা এ চাষে বেশি লাভবান হবে ।

মাগুরা সদরের কার্পাসহাটি গ্রামের পাট চাষী বাবলু শিকদার বলেন,এবার আমি ২ একর জমিতে পাটের আবাদ করেছি । শুরু বীজ বোনার পর কিছুটা শঙ্কিত ছিলাম । অনাবৃষ্টি আর তীব্র খরার কারণে পাটের চারার কিছুটা ক্ষতি দেখা দিয়ে ছিল কিন্তু বৈশাখ মাসের শেষের দিকে কিছুটা বৃষ্টিপাত হওয়াতে পাটের চারা অনেকাংশে ভালো বৃদ্ধি পেয়েছে । আষাঢ় মাসের শুরুতে বৃষ্টি বেশি হওয়ার ফলে এ চাষে আরো ভালো ফলনের আশা মনে করছি ।

সদরের বাটিকাডাঙা গ্রামের পাট চাষী গণেশ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন,আমি এবার দেড় একর জমিতে পাটের চাষ করেছি । এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকার কারণে পাট চাষ ভালো হবে । এ চাষে খরচ কম লাভ বেশি । পাট কাটা ও জাগ দেওয়ার সময় অনেক সময় আমাদের শ্রমিক সংকট দেখা দেয় । তাই নির্দিষ্ট সময়ে যদি শ্রমিক পায় তাহলে পাট কেটে জাগ দিয়ে ভালো অর্থ পাব ।

মাগুরা সদরের চাউলিয়া ইউনিয়নের  বালিয়াডাঙা গ্রামের নাজিম উদ্দিন বলেন,আমি চাষ মুলত পাটের । প্রতি বছরের ন্যায় এবার আমি ৩ বিঘা জমিতে পাটের চাষ করেছি । আমাদেও গ্রামের পাশ দিয়ে নদী বয়ে যাওয়ার কারণে আমাদের পাট জাগ দেওয়া ও তোলা ভালো হয় । আমাদেও পাটের রং খুবই ভালো হয় । তাই আমরা পাটের দামও ভালো পায় । প্রতি বছর বিভিন্ন এলাকার ব্যাপারিরা আমাদের গ্রামের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাট আশঁ সংগ্রহ করে । এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকার কারণে পাটের বাম্পার ফলন বলে বলে মনে করছি ।

মাগুরা জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়,চলতি বছর যথাসময়ে বৃষ্টিপাত ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকার কারণে পাট চাষ ভালো হয়েছে । এ বছর কৃষি বিভাগ থেকে জেলার পাট চাষীদের কৃষি প্রণোদনার আওতায় ২০ হাজার কৃষককে বিনামূল্যে পাটের বীজ দেওয়া হয়েছে । এ চাষের উৎপাদন বৃদ্ধিতে কৃষি বিভাগ সব সময় কৃষকদের পাশে আছে । আমাদের কৃষি বিভাগের মাঠকর্মীরা নিয়মিত মাঠ পরিদর্শন ও তদারক করছে । তাছাড়া পাট চাষের ব্যাপারে পাটচাষীদের প্রয়োজনীয়  পরামর্শ প্রদান করছে ।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)