শিরোনাম:
পাইকগাছা, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

SW News24
রবিবার ● ৮ জানুয়ারী ২০১৭
প্রথম পাতা » কৃষি » রাজশাহীতে লক্ষমাত্রার চেয়ে প্রায় দেড় হাজার হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত আলুর আবাদ
প্রথম পাতা » কৃষি » রাজশাহীতে লক্ষমাত্রার চেয়ে প্রায় দেড় হাজার হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত আলুর আবাদ
৫৭২ বার পঠিত
রবিবার ● ৮ জানুয়ারী ২০১৭
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

রাজশাহীতে লক্ষমাত্রার চেয়ে প্রায় দেড় হাজার হেক্টর জমিতে অতিরিক্ত আলুর আবাদ

---
মোঃ আসাদুল ইসলাম রাজশাহী থেকে ।
দাম ভাল ও অনুকুল আবহাওয়া থাকায় এবারে রাজশাহী জেলায় আলুর আবাদ বেড়েছে। ঘন কুয়াশা, ছত্রাক ও ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে আবাদ বাঁচাতে গাছের চারার যত্নে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা।
রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস থেকে জানা গেছে, এবারে জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় ১ হাজার ৩শ’ ৫০ হেক্টর বেশী জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। আলুর আবাদ হয়েছে ৪২ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে। যার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪০ হাজার ৯শ’ হেক্টর।
ভাল দাম, অনুকুল আবহাওয়া থাকায় এবং কয়েক বছরের লোকসান পুষিয়ে নিতে চলতি মৌসুমে রাজশাহীতে আলু আবাদ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ১০ হাজার বিঘা (১ হাজার ৩শ’ ৫০ হেক্টর)। আগামীতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে উৎপাদন ভাল হবে বলে আশা করছেন আলু চাষী ও কৃষিবিদরা।
জেলার পবা, মোহনপুর, বাগমারা, দুর্গাপুর, তানোর ও গোদাগাড়ি উপজেলা জুড়েই আলুর আবাদ হয়ে থাকে। এসব উপজেলার প্রতিটি মাঠই আলু আবাদের সবুজের চাদরে মুড়েছে। যে দিকে চোখ যায় শুধু দিগন্তজোড়া সবুজের সমারোহ। ক্ষেতে ক্ষেতে চলছে আলু গাছের যত্ন। কেউ ক্ষেতে সেচ দিচ্ছেন, কেউ টপ ড্রেসিং (আলু গাছের সারিতে মাটি তুলে দেয়া ও সরিয়ে দেয়ার কাজ)। আবার কেউ দিচ্ছেন রাসায়নিক সার এবং কেউবা ছত্রাক, রোগ-বালাই ও ঘন কুয়াশার হাত থেকে আবাদ বাঁচাতে কীটনাশক স্প্রে করছেন।
রাজশাহীর আলু চাষী ও কৃষিবিদদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত মৌসুমের শুরুতে আলুর ভাল দাম না পেলেও শেষের দিকে ভাল দাম পাওয়া গেছে। শুরুতে প্রতি বস্তা (৮৫ কেজি) আলুর দাম ১২শ’ থেকে ১৪শ’ থাকলেও শেষ পর্যন্ত এ দাম গিয়ে দাঁড়ায় ২ হাজার থেকে ২৫শ’ টাকা। তবে এ দামে কাউকে কাউকে লোকসান গুণতে হয়েছে। আবার অনেকেই লাভ নিয়ে ঘরে ফিরেছেন। তাই কেহ কেহ লোকসান পুষাতে আবার অনেকে ভাল দাম পাওয়ায় এবারে আলু আবাদে ঝুঁকেছেন। প্রেক্ষিতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী জমিতে আবাদ করেছেন চাষিরা ।
এদিকে রাষ্ট্রপতি পদকপ্রাপ্ত আলু চাষী বড়গাছির রহিমুদ্দিন সরকার বলেন, অনুকূল আবহাওয়া এবং ভাল মানের বীজ দিয়ে আবাদ করায় রাজশাহীতে আলুর আবাদ ও উৎপাদন দু’টোই বাড়ছে। এবার তিনি ও তার ছেলেরা মিলে প্রায় ১২৫ বিঘা জমিতে আলু আবাদ করেছেন। এখন পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় উৎপাদন ভাল হবার আশা করছেন তিনি। তার এলাকার অন্যান্য চাষিদের আবাদও এবার ভাল আছে।
এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোন দুর্যোগ না হওয়ায় এবার উৎপাদন ভাল হবার আশা করছেন তারা। তবে কয়েকদিন থেকে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ শুরু হওয়ায় এবং ঘন কুয়াশার কারণে আলু আবাদ নিয়ে শংকা দেখা দিয়েছে চাষিদের মনে। রোগবালা এড়াতে তারা ক্ষেতে পুরোদমে ছত্রাকনাশক স্প্রে করে চলেছেন।
জেলার পবা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা একেএম মনজুরে মাওলা বলেন, ঘন কুয়াশায় ম্যানকোজেব ম্যাটালিক্সিল (ম্যাটারিল, ম্যাটাটিকি, ম্যালিডিডু ও সিকিউর) গ্রুপের ছত্রাকনাশক অনুমোদিত মাত্রায় স্প্রে করতে হবে। তিনি আরো বলেন, যদি ক্ষেতে নাভিধ্বসা রোগ দেখা দেয় তবে ক্ষেতে ইউরিয়া সার প্রয়োগ করা যাবে না। পাশাপাশি ক্ষেতে সপ্তাহ খানেকের জন্য সেচ বন্ধ রাখতে হবে।
এদিকে স্টোর কর্তৃপক্ষ, চাষি ও আলু সংশ্লিষ্টদের কাছে থেকে জানা গেছে রাজশাহীর কোল্ড স্টোরেজ গুলোর ধারন ক্ষমতার চেয়ে অনেক বেশি আলু এখানে উৎপাদন হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিগত বছরে দেখা গেছে, স্টোরে জায়গা না পাওয়ায় অনেকে লোকসানে আলুবিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে। রাজশাহীতে ২৮টি কোল্ড স্টোরে আলু ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৩৬ লাখ বস্তা। কাংখিত উৎপাদন হলে আলু সোয় কোটি বস্তা ছাড়িয়ে যাবে।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)